দেশে করোনার সংকট অব্যাহত রয়েছে। দু’মাস পরে, ২৫ শে মে সরকার দেশীয় উড়ান পুনরায় চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, কিন্তু এখন একটি চকচকে খবর এলো যে তালাবন্ধির অসম্পূর্ণ নীতি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। ২৫ মে চেন্নাই থেকে কয়ম্বাতরে যাওয়ার ইন্দিগোর বিমানের এক যাত্রী করোনার ভাইরাসের ধনাত্মক বলে প্রমাণিত হয়েছে। এ ছাড়াও আরও তিনজন যাত্রীকে বিভিন্ন ফ্লাইটে করোনার পজিটিভ পাওয়া গেছে। কইম্বাতরে ইএসআই স্টেট মেডিকেল ফ্যাসিলিতে রোগী কোয়ারেন্টাইন।
ইন্ডিগো জানিয়েছে যে সোমবার চেন্নাই থেকে কইম্বাটোরের একটি ফ্লাইটে ভ্রমণ করা এক যাত্রী কোভিড -১৯ ইতিবাচক বলে প্রমাণিত হয়েছে। সংস্থাটি এক বিবৃতিতে বলেছে, “কয়ম্বাতুর বিমানবন্দরের চিকিত্সক নিশ্চিত করেছেন যে ২৫ মে সন্ধ্যা ৬ সময়। ৩৮১ থেকে চেন্নাই থেকে কোয়েমবটোরগামী যাত্রী কোভিড -১৯ এ আক্রান্ত হয়েছেন।” বর্তমানে, রোগী কোয়েম্বাতুরে ইএসআই স্টেট মেডিকেল ফ্যাসিলিটিতে পৃথক অবস্থায় রয়েছে।


বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “তিনি মুখোশ, মুখ সিল করা এবং গ্লাভস সহ সমস্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থায় বিমানটিতে বসে ছিলেন। এ ছাড়া আর কোনও যাত্রী তাঁর আশেপাশে বসে ছিলেন না, যার কারণে সংক্রমণ ছড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা খুব কম ছিল,” বিবৃতিতে বলা হয়েছে। বিবৃতি অনুসারে, ইন্ডিজোর সমস্ত বিমান নিয়মিতভাবে একটি মানক অপারেটিং পদ্ধতির অধীনে স্যানিটাইজ করা হয় এবং তাত্ক্ষণিক প্রোটোকল অনুসারে এই বিমানটি স্যানিটাইজও করা হয়েছিল। এই তিনটি ফ্লাইটে করোনার পজিটিভও পাওয়া গেছে।
চেন্নাই কয়ম্বাটোর ইন্ডিগো বিমান ছাড়াও দিল্লি থেকে লুধিয়ানা অ্যালায়েন্স এয়ারের বিমানটিতে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। এর পরে খবর এলো যে একুশ তারিখে টরেন্টস থেকে দিল্লিতে আগত এয়ার ইন্ডিয়া বিমানের দুটি কম্বিন ক্রু কর্নো পজিটিভ ছিলেন। মানে তিনটি বিমানে চারজন করোনায় আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here